KOLKATA WEATHER
এক ঝলকে

লকডাউনে শুনসান কলকাতার সর্ববৃহৎ পাইকারি বাজার

নিউজ ডেস্ক: যতদিন যাচ্ছে ,অতিমারী করোনা ততই ভয়াবহ হয়ে উঠছে। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে রেকর্ড গতিতে । সংক্রমণ ঠেকাতে নবান্ন থেকে জারি করা হয়েছে সাপ্তাহিক লক ডাউন। শনিবার চলতি সপ্তাহে দ্বিতীয় লকডাউন । আর সেই লক ডাউন সফল করে তুলতে সদা তৎপর পুলিশ প্রশাসন । কলকাতার সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার হলো বড়বাজার । কয়েক হাজার হাজার মানুষ সেখানে যাতায়াত করেন আর সেই কারণে বড়বাজারেই করোনা সংক্রমণ বেশি হতে পারে বলে জানিয়েছেন পুরদফতর । আর তাই সপ্তাহে দ্বিতীয়
লক ডাউনে বড়বাজার চত্বর ছিল কড়া পুলিশ পাহাড়া । আঁটোসাঁটো ব্যবস্থা করা হয়েছিল। করোনা সংক্রমণের প্ৰথম দিকেও বড়বাজার নিয়ে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন ছিল রাজ্য প্রশাসন । সেই খাতিরে বারবারই সেখানকার অবস্থা খতিয়ে দেখতে ছুটে গেছেন কলকাতার মেয়র তথা পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিম । করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রথম দিন থেকেই রাস্তায় নেমে লক ডাউন পালন, মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করার জন্য মাইকিং থেকে শুরু করে অলিগলির মানুষকে সচেতন করে এসেছে বড়বাজার থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ আধিকারিক শ্রী সলিল রায় ও অন্যান্য আধিকারিকেরা । বেশ কঠোর হাতেই স্থানীয় মানুষ ও ব্যবসায়ীদের লক ডাউন মানতে বাধ্য করিয়েছেন তিনি। প্রশাসনের তরফে প্রতিদিনই বড়বাজার চত্বর স্যানিটাইজ করা হয়েছে । এছাড়াও শনিবার দিন সকাল থেকেই বড়বাজার সংলগ্ন মহাত্মা গান্ধি রোডে প্রতি মুহূর্তে চলেছে নাকা চেকিং । জরুরি কারণ ছাড়া কোনো গাড়িকেই যেতে দেওয়া হয়নি । এর পাশাপাশি চলেছে মাইকিং ও সচেতনতার প্রচার । লক ডাউন না মানার কারণে অনেককেই অবিলম্বে গ্রেফতার করেছে বড়বাজার থানার পুলিশ । করোনা রুখতে বড়বাজারকে সংক্রমণ মুক্ত রাখতে এই পুরো ঘটনার দায়িত্বে ছিলেন বড়বাজার থানার অতিরিক্ত ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক এস. এস. রায় সহ আধিকারিক সন্দীপ পাল,প্রীতম তামাং,সার্জেন্ট দেবাশীষ বন্দ্যোপাধ্যায়,অভিজিত সরকার ও থানার অন্যান্য পুলিশ কর্মচারী। কলকাতা তথা রাজ্যের সর্ববৃহৎ ঘিঞ্জি বাজারকে স্বচ্ছ রাখতে কঠোর হাতে লক ডাউন মেনে চলার ও মানিয়ে চলার দায়িত্ব নিয়েছেন পুলিশ প্রশাসন।

মোবাইলে খবরের নোটিফিকেশন পেতে এখানে ক্লিক করুন - Whatsapp , Facebook Group

আমাদের খবর পাঠাতে এখানে ক্লিক করুন - Whatsapp
Close
Close